22.9 C
Dhaka
November 20, 2019
সারাদেশ

বান্দরবান রুমায় ১নং পাইন্দু ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আরথা পাড়াবাসীর অর্থ আৎর্তসাতের অভিযোগ,

বান্দরবান প্রতিনিধি: ডেভিড সাহা
সোলার প্যানেল পাইতে প্রতি পরিবার থেকে দেড় হাজার টাকা করে নিয়েছিলেন পাইন্দু ইউপি  চেয়ারম্যান উহ্লামং মারমা। তবে দুই বছর পেরিয়ে গেছে। তারপরও কোনো সোলার প্যানেল দেননি  চেয়ারম্যান। এখন সোলার চাইতে গেলে ইউপি চেয়ারম্যান বিব্রতবোধ করেন। মাঝে মধ্যে সোলার প্রসঙ্গ ওঠলেই পাড়াবাসীদের উপর উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। তাই ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড থেকে সোলার প্যানেল পাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়েছেন । হত্যাশায় ভোগছেন আরথাহ্ পাড়াবাসীরা,

সোমবার(১জুলাই) দুপুরে রুমা বাজারে এক মুদি দোকানে আলাপ চলাকালিন সময়ে এসব কথা  জানিয়েছেন বান্দরবানের রুমায় পাইন্দু ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের আরথাহ পাড়ার স্থানীয়রা। এ  পাড়ায় ৫১পরিবারের লোকজন বসবাস করছেন।  জিরসাং বম(৩৫) ও মেমোরী বম(৪১), এই দুইজনই আরথাহ পাড়ার বাসিন্দা। তাদের ভাষ্যমতে  পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড(পাচউবো থেকে সোলার প্যানেল বরাদ্ধ পাওয়ার জন্য প্রকল্পের  সংশ্লিষ্ট কর্মকতাদের খুশি করতে আনুষাঙ্গিক ব্যয় মেটানোর কথা জানিয়ে আরথাহ  পাড়াবাসীদের কাছে পরিবার প্রতি এক হাজার ৫০০টাকা হারে চাঁদা নিছে। সোলার প্যানেল  পাওয়ার আশায় আরথা পাড়ার ৩০পরিবার থেকে দেড় হাজার টাকা করে মোট ৩০হাজার টাকা  বিগত ২০১৭সালে ১৫জুন ইউপি চেয়ারম্যান উহ্লামং মারমাকে দেয়া হয়। দুই বছর পার হয়ে  গেছে। এখনো কোনো পরিবার একটি সোলারও পাননি, এ ক্ষোভের কথা জানিয়ে জিরসাং  বম(৩৫) জানান যে, তার প্রতি বেশি মায়ামমতা বাড়ানোর লক্ষ্যে ইউপি চেয়ারম্যানের ইচ্ছা  অনুযায়ী জঙ্গল থেকে শিকার করে জীবিত বন মোরগ পযন্ত দিয়েছেন। তবুও কোনো সোলার প্যানেল পায়নি এখনো!

মেমোরী বম(৪১) বলেন আরথাহ্ পাড়ার লোকজন সবাই পাহাড়ি জুম চাষি। সোলার পাইতে  পাড়াবাসীর মধ্যে অনেকে মহাজনের কাছে অগ্রিম মজুরি টাকা, দাদন ও সুদে টাকা ধার  নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান উহ্লামংকে দিয়েছেন। তারপরও কেউ কোনো সোলার প্যানেল না পাওয়ার  এ কষ্টের কথা কাকে গিয়ে জানাবো? এ প্রশ্ন করেন তিনি। তিনি আরো বলেন ইউপি  চেয়ারম্যান সোলার প্যানেল দেয়ার কথা জানিয়ে আমাদের কাছ থেকে চাঁদা নিয়ে প্রতারণা করে অন্যায় করেছেন।

এ অন্যায়ের বিরুদ্ধে সুবিচার চেয়ে উপজেলা কর্মকতার নিকট গত ৩০জুন অভিযোগ করেন  তারা। আরথা পাড়ার অর্ধশতাধিক লোকজনের গণস্বাক্ষওে ওই অভিযোগ পত্রে প্রতি পরিবারকে  ১০০ওয়ার্ট সোলার প্যানেল বিতরণ অথবা পাড়াবাসীর নিকট উত্তোলিত চাঁদার টাকা ফেরত  প্রদানের দাবি জানিয়েছেন তারা।এই বিষয়ে জানতে উপজেলা নিবার্হী কর্মকতার্ মোহাম্মদ শামসুল আলম এর সাথে মোটোফোনে কথা বলি জানতে পাড়লাম যে! তিনি এই বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছে এর যতাযত ব্যবস্তা গ্রহন করা হবে বলে জানান।

Related Articles

“খাস জমির অধিকার ভুমিহীন জনতার”

Bhumihin Barta

তালতলীতে মাদক বিরোধী সুধী সমাবেশ ও ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠিত

Bhumihin Barta

হকারদের পেটে লাথি মারা শুরু হয়েছে

Staff Correspondent